৩ বছরের মধ্যে দেশে কেউ বেকার থাকবে না

আগামী তিন বছরের মধ্যে দেশে কোনো মানুষ বেকার থাকবে না বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

সোমবার (১৮ এপ্রিল) সন্ধ্যায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মলেন কেন্দ্রে বেসরকারিখাতের এনআরবি কমার্সিয়াল ব্যাংকের তৃতীয় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, সরকার কর্মসংস্থান সৃষ্টি করছে, বেকার সমস্যা সমাধানে বিদেশেও শ্রমিক পাঠানো হচ্ছে। আগামী তিন বছরের মধ্যে দেশে কোনো বেকার সমস্যা আর থাকবে না।

অনুষ্ঠানে ব্যাংকিংখাত নিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের ব্যাংকিং খাত বিত্তবানদের তুলনায় অনেক বড়। আমরা গর্ববোধ করি অত্যন্ত গরিব দেশের লোকরাও ব্যাংকিং করে। যার পরিমাণ ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ।

আমাদের জিডিপির আকারের অনুপাতে ব্যাংকের সংখ্যা অনেক বেশি। ৭ বছর আগে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করার পর নতুন করে ব্যাংকের লাইসেন্স দেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। ৭০-৮০টি আবেদন পড়লে, সেখান থেকে ১১-১২টা লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে।

‘আমি মনে করি দেশে ব্যাংকের সংখ্যা অনেক বেশি নয়। তাছাড়া তিরিশের দশকে যে ধস হয়েছিলো, এমন ধস হওয়ার আর সম্ভাবনা নেই। সাম্প্রতিক বিশ্বে যে ধস হয়েছে, তা অনেক ভালোভাবে মোকাবেলা করা হয়েছে’ –  বলেন মুহিত।

Muhith

তিনি আরও বলেন, আমরা সরকার গঠনের পর আর্থিক খাতে অনেক বিপর্যয় ঘটে গেছে। প্রথমে পুঁজিবাজারে, এরপর সবচেয়ে বড় ব্যাংক সোনালী ব্যাংকে হলমার্ক ও বিসমিল্লাহ কোম্পানির জালিয়া‍তি। এরপর আরও বেশ কিছু জালিয়াতির ঘটনা ঘটেছে। আমি এর একটি তালিকা করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু পারিনি।

আরও একটি ব্যাংকে জালিয়াতি হয়েছে, সেটা হলো বেসিক ব্যাংক। এটা একটি ভালো ব্যাংক ছিলো। কিন্তু এই ব্যাংকটিও একটি সময় জালিয়াতি ও লুটপাটের ব্যাংকে পরিণত হয় বলে মন্তব্য করেন তিনি।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘সম্প্রতি আরও একটি ঘটনা ঘটেছে। সেটাও ব্যাংক খাতে। বিশ্বের  মধ্যে এটাই প্রথম। ১৯৪২ সালের পর থেকে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক বিশ্বের সব দেশের ব্যাংক। সেই ব্যাংক থেকে মুদ্রা পাচার হলো। কোন দেশের ? গরিব বাংলাদেশের।’

অনুষ্ঠানে বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদানের জন্য শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ (২০১৫), সাহিত্যিক সেলিনা হোসেন (২০১৫), সাবেক ডেপুটি গভর্নর খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের প্রধান সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন (২০১৪), বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক এ কে এম শহীদুল হক ও বর্ডার গার্ড অব বাংলাদেশের (বিজিবি) মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদের হাতে সম্মাননা তুলে দেন অর্থমন্ত্রী।

এ সময় অন্যদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন এনআরবি কমার্সিয়াল ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক দেওয়ান মুজিবুর রহমান, চেয়ারম্যান ফরাছত আলী প্রমুখ।

সুত্রঃ- banglanews24

[x]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *