১২তম বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন লিখিত পরীক্ষার ফলাফল জানবেন যেভাবে

দ্বাদশ শিক্ষক নিবন্ধন লিখিত পরীক্ষার ফল আজ ২৯ অক্টোবর প্রকাশ করা হবে। বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) অধীনে দ্বাদশ শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার লিখিত পরীক্ষা যথাক্রমে ২৮ ও ২৯ আগস্ট শুক্রবার ও শনিবার সকাল ০৯ টা – দুপুর ১২ টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয়। এ পরীক্ষায় সারাদেশের ৬০ হাজার ৮৭৫ জন প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করেন।

১৪ অক্টোবর ২০১৫ তারিখ সচিবালয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান।

আপনাদের সুবিধার্থে লেখাপড়া বিডি থেকেও ১২তম বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন এর লিখিত পরীক্ষার ফলাফল জানা যাবে। ফলাফল জানতে ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে লগইন করতে হবে । 

১২তম বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন এর লিখিত পরীক্ষার ফলাফল দেখুন এখানেঃ

১২ জুন অনুষ্ঠিত প্রিলিমিনারি টেস্টে স্কুল পর্যায়ে পাসের হার ১৩ দশমিক ৯ শতাংশ এবং ১৩ জুন অনুষ্ঠিত কলেজ পর্যায়ে ২০ দশমিক ৯৬ শতাংশ। দুই পরীক্ষায় গড় পাসের হার ১৫ দশমিক ৮১ শতাংশ।এর আগে প্রিলিমিনারি টেস্টের ফলাফল ২১ জুলাই মঙ্গলবার বিকেল চারটায় প্রকাশ করা হয়।

মোবাইলে শিক্ষক নিবন্ধন এর ফলাফল পাবেন যেভাবেঃ কৃতকার্য প্রার্থীদেরকে মোবাইলে এসএমএসের মাধ্যমে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ফলাফল জানিয়ে দেয়া হবে।

পরিসংখ্যানঃ স্কুল পর্যায়ে ৪১ হাজার ২০৩ জন এবং কলেজ পর্যায়ে ৩৪ হাজার ৭৮৬ জনসহ মোট ৭৫ হাজার ৯৮৯ জন পরীক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয়েছেন।

১২ জুন অনুষ্ঠিত পরীক্ষায় স্কুল পর্যায়ে তিন লাখ ১৪ হাজার ৭৩৯ জন এবং ১৩ জুন অনুষ্ঠিত কলেজ পর্যায়ে এক লাখ ৬৫ হাজার ৯৩১; অর্থাৎ মোট চার লাখ ৮০ হাজার ৬৭০ প্রার্থী অংশগ্রহণ করেন।

স্কুল পর্যায়ে তিন লাখ ৫২ হাজার ১৭ জন এবং কলেজ পর্যায়ে এক লাখ ৮০ হাজার ৫০৫ জন; মোট পাঁচ লাখ ৩২ হাজার ৫২২ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার জন্য আবেদন করেছিলেন।

প্রিলিমিনারিতে উত্তীর্ণ প্রার্থীদের করণীয়ঃ প্রিলিমিনারিতে উত্তীর্ণ প্রার্থীরা দ্বিতীয় ধাপে অনলাইনে পূরণকৃত আবেদনপত্রের প্রিন্ট কপির সঙ্গে শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্রসহ অন্যান্য কাগজপত্র প্রেরণ করবেন। আবেদনসমূহ যাচাইয়ের পর যোগ্য প্রার্থীদের লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

অন্যান্য তথ্যঃ আগে স্কুল এবং কলেজ উভয় পর্যায়ে দুটি পরীক্ষা এক সঙ্গে চার ঘণ্টা ধরে (এমসিকিউ পদ্ধতিতে আবশ্যিক বিষয়ের পরীক্ষার এক ঘণ্টা এবং বর্ণনামূলক পদ্ধতিতে বিষয়ভিত্তিক লিখিত পরীক্ষা তিন ঘণ্টা) বিরতিহীনভাবে গ্রহণ করা হতো। এবারই প্রিলিমিনারি ও লিখিত পরীক্ষা পৃথক দিনে নেওয়া হচ্ছে। ১০০ নম্বরের প্রিলিমিনারিতে এমসিকিউ পরীক্ষায় উত্তীর্ণরা লিখিত পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবেন।

প্রিলিমিনারি টেস্ট ২০টি জেলাভিত্তিক কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হলেও দ্বিতীয় ধাপের পরীক্ষার কেন্দ্র কমিয়ে আনা হবে।

লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের নিবন্ধন সনদ দেওয়া হবে।

 

 

[x]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *